সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

bangladesh-cricket-rainy-season.jpg

এ বছরের ক্রিকেট বর্ষায় ক্রিকেট জমবে তো?

জুন মাসে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হতে পারে। তবে এই মাসে বঙ্গোপসাগরে এক থেকে দু‘টি মৌসুমী নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। আর জুলাই মাসে স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টিপাত হলেও বঙ্গোপসাগরে একটি মৌসুমী নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে বলে উল্লেখ করেছে।

বাংলাদেশের ক্রিকেট প্রেমীগণ স্বীয় দলের খেলা উপভোগ করার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে থাকে। বিশেষ করে হোম সিরিজ হলে তো কথাই নেই। চলমান ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারীতে বসেছিল ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আসর 'বিশ্বকাপ ক্রিকেট'। তার পর-পরই এপ্রিল মাসে হয়ে গেল বাংলাদেশ পাকিস্তানের মধ্যেকার হোম সিরিজটি। হোয়াইট ওয়াশের মাধ্যমে বিজয় থেকে দেশের মানুষ যে অতৃপ্তিকে ডিঙ্গিয়ে গেছে তাতে কোন সন্দেহ নেই। তবে এবারের আলোচ্য বিষয় হ’লো, বছরের বাকী সময়কে ঘিরে বাংলাদেশ দলের খেলা নিয়ে।

সামনে, এ বছরের বাকী সময়ে বাংলাদেশ দলের তিনটি সিরিজ রয়েছে, যার সবই হোম সিরিজ। এর মধ্যে প্রথম সিরিজটি হতে যাচ্ছে শক্তিশালী দল ভারতের বিরুদ্ধে। আমরা সবাই জানি, উপমহাদেশের কন্ডিশনে ভারত খুবই শক্তিশালী দল, বাংলাদেশের মাঠকেও তারা স্বদেশের মাঠের মতই ফেভারিটই ভেবে থাকে। তবে বাংলাদেশ দলও বর্তমানে খুব একটা কম যাচ্ছে না। বিশেষ করে নিজ দেশের মাটিতে হ’লে তো কথাই নেই। মনে হয় 'রিয়েল টাইগার'। ভারতের ব্যটিং লাইন আপ পাকিস্তানের চেয়ে ভাল হলেও পাকিস্তানের বোলিং শক্তি আবার ভারতের চেয়ে অনেক ভাল। সে বিচারে বাংলাদেশ দলকে খাটো করে দেখার সুযোগ নেই।

ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের জার্সি পরিবর্তন হয়ে গেছে। পূর্বের স্পন্সর সাহারা’র মেয়াদ শেষ হওয়ায় আগামী দুই বছরের জন্য স্পন্সর হয়েছে দেশের শীর্ষ স্থানীয় মোবাইল ফোন অপারেটর 'রবি আজিয়াটা লিমিটেড'। গেল ১ জুন রবির লোগো সম্বলিত আমাদের জাতীয় ক্রিকেট দলের নতুন জার্সি উন্মোচন উপলক্ষ্যে বিসিবি’র সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন আসন্ন 'জাএনজি আইসক্রীম ক্রিকেট সিরিজ ২০১৫' এ বাংলাদেশ দল ভাল করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, 'এই সিরিজটা আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ'।

আলোচ্য সিরিজে বাংলাদেশ ভারতের বিরুদ্ধে একটি ৫ দিনের টেষ্ট ম্যাচ ও ৩টি একদিনের সীমিত ওভারের আন্তর্জাতিক ম্যাচে অংশ গ্রহণ করবে। যা শুরু হবে জুন মাসের ১০ তারিখ, সকাল ১০.০০ মিনিটে ফতুল্লার খান সাহেব স্টেডিয়ামে একমাত্র টেষ্ট খেলাটির মাধ্যমে, চলবে একটানা ১৪ তারিখ পর্যন্ত। অর্থাৎ বাংলা ১৪২২ সনের ২৭ জৈষ্ঠ থেকে ৩১ জৈষ্ঠ পর্যন্ত। 

এরপর ১৮ জুন অর্থাৎ আষাঢ় মাসের ৪ তরিখে শুরু হবে একদিনের সীমিত ওভারের খেলা। খেলাটি অনুষ্ঠিত হবে মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিকাল ২.৩০ মিনিটে। দ্বিতীয় খেলাটিও অনুষ্ঠিত হবে একই স্টেডিয়ামে, একই সময়ে ২১ জুন তারিখে অর্থাৎ আষাঢ় মাসের ৭ তারিখে। সবশেষ  খেলাটি  অনুষ্ঠিত হবে একই স্টে ডিয়া মে একই সময়ে ২৪ জুন অর্থাৎ আষাঢ় মাসের ১০ তারিখে।

গত ৬ মে তারিখে আবহাওয়া অধিদপ্তর ৩ মাস মেয়াদী আবহাওযার পূর্বাভাস সম্পর্কে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, মে, জুন ও জুলাই মাসে বঙ্গোপসাগরে ৩ থেকে ৪টি মৌসুমী নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এর মধ্যে একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। এ ছাড়াও জুন মাসের প্রথমার্ধে সারা দেশে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ু (বর্ষা) বিস্তার লাভ করতে পারে। 

জুন মাসে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হতে পারে। তবে এই মাসে বঙ্গোপসাগরে এক থেকে দু‘টি মৌসুমী নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। আর জুলাই মাসে স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টিপাত হলেও বঙ্গোপসাগরে একটি মৌসুমী নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে বলে উল্লেখ করেছে। একে তো প্রচন্ড গরম তারপর আবার মুসলমানদের ফরজ ইবাদত সিয়াম সাধনার মাস শুরু হতে যাচ্ছে (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে) ১৯ জুন ২০১৫। তাহলে অবস্থা দাঁড়াল এ রকম যে, একে তো বর্ষাকাল, তারপর প্রচন্ড গরম এবং রমজান মাস । তাই বলছিলাম, বর্ষায় ক্রিকেট জমবে তো?

ঘটনা এখানেই শেষ নয়। এ বছরে বাকী থাকে আরও দু’টো সিরিজ। যার একটা দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে অন্যটি অষ্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। জুলাই মাসের ৫ তারিখে সন্ধ্যা ৬টায় মিরপুর জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথম T20’র মধ্য দিয়ে শুরু হবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে হোম সিরিজটি। যার মধ্যে থাকবে দুইটি T20, তিনটি একদিনের সীমিত ওভারের খেলা এবং সবশেষে ৩ জুলাই অর্থাৎ শ্রাবণ মাসের ১৯ তারিখে দ্বিতীয় টেষ্টের শেষ দিবসটির মধ্য দিয়ে শেষ হবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজটি। অক্টোবর মাসের বাংলাদেশ বনাম অষ্ট্রেলিয়া হোম সিরিজটি না হয় ধরে নিলাম ঠিক আছে, কিন্তু তার পূর্বের উল্লেখিত সিরিজ দু’টি কী আমরা শান্তি হালে দেখতে পারব?

অবস্থার প্রেক্ষাপটে ছোট্র একটা ঘটনার কথা মনে পড়ে গেল। ঘটনাটি বাংলাদেশের একটি জেলা শহরের। আমি তখন একটা স্থানীয় ক্রিকেট ক্লাবের সভাপতি। যথারীতি সময় মতই আমরা ছেলেদের প্র্যাকটিসের ব্যবস্থা করলাম। কম-বেশী আমরা সবাই জানি, ক্রিকেট একটা অত্যন্ত ব্যয় বহুল খেলা। যা হোক, মাঝ পথে আমাদের দম ফুরিয়ে যাবার পরও যখন স্থানীয় লীগ মাঠে গড়ানোর কোন আলামত দেখছিলাম না তখন আমরা আশাহত হয়ে মাঠ ছেড়ে বাধ্য হয়ে ঘরে উঠে গেলাম। হঠাৎ মে মাসের শেষ সপ্তাহে জেলা ক্রীড়া সংস্থার অফিসে আমাদের ডাক পড়ল। আলস্যভরেই আমরা সবাই হাজিরা দিলাম এবং জুনের মাঝামাঝি সময়ে লীগ শুরুর সিদ্ধান্তে বৃষ্টির উৎপাতের আশংকায় যখন হতাশা প্রকাশ করলাম তখন সংস্থার সেক্রেটারী সাহেব মন্তব্য করলেন, 'বৃষ্টির মধ্যে যদি ফুটবল লীগ হতে পারে তবে ক্রিকেট লীগ হবে না কেন'! 

এবার আইসিসি সম্পর্কে আমরা কী ভাববো সেটাই হ’লো কথা!  


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

Cricket, Bangladesh, India, pakistan, south-africa, australia, tigers, 2015, series